সামগ্রিক কার্যক্রম

/সামগ্রিক কার্যক্রম
সামগ্রিক কার্যক্রম 2021-06-13T16:21:48+06:00

পরিচালন কার্যক্রম

জিটিসিএল পরিচালিত পাইপলাইন ও স্থাপনাসমূহের মাধ্যমে নির্ধারিত ডেলিভারি পয়েন্ট দ্বারা ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে তিতাস, বাখরাবাদ, কর্ণফুলী, জালালাবাদ, পশ্চিমাঞ্চল ও সুন্দরবন গ্যাস বিতরণ কোম্পানিসমূহের অধিভুক্ত এলাকায় যথাক্রমে ১৫৪৮.৩৩, ২৬৮.৩৯, ৩২৬.৪৫, ১৬৪.৭৬, ১৭২.৯০ ও ৪৬.৮২ কোটি ঘনমিটার অর্থাৎ সর্বমোট ২,৫২৭.৬৫ কোটি ঘনমিটার গ্যাস সরবরাহ করা হয়, যা পূর্ববর্তী বছর হতে ১.৯৭% বেশী। অপরদিকে উল্লিখিত সময়ে উত্তর-দক্ষিণ পাইপলাইনের মাধ্যমে শেভরনের জালালাবাদ ও বিবিয়ানা গ্যাস ক্ষেত্র হতে ২,৩৩৬.৮১ লক্ষ লিটার কনডেনসেট পরিবহন করা হয়, যা পূর্ববর্তী বছর হতে ৬.৩৭% কম।

জিটিসিএল প্রধান কার্যালয়স্থ মাস্টার কন্ট্রোল সেন্টার (এমসিসি) এবং আশুগঞ্জস্থ অক্সিলারি কন্ট্রোল সেন্টার (এসিসি) হতে স্কাডা সিস্টেমের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত সমগ্র দেশে সরবরাহকৃত গ্যাসের তথ্য-উপাত্ত নিরবচ্ছিন্নভাবে পর্যবেক্ষণ ও সংগ্রহ করা হচ্ছে। আগারগাঁও, আশুগঞ্জ ও এলেঙ্গা স্কাডা কন্ট্রোল সেন্টারের মাধ্যমে দেশের সর্বত্র গ্যাসের লোড ব্যালান্সিং কাজে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করা হচ্ছে। নব নির্মিত মহেশখালী-আনোয়ারা গ্যাস সঞ্চালন সমান্তরাল পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প, চট্টগ্রাম-ফেনী-বাখরাবাদ গ্যাস সঞ্চালন সমান্তরাল পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প, মহেশখালী জিরো পয়েন্ট (কালাদিয়ার চর)-সিটিএমএস (ধলঘাট পাড়া) গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প আওতায় স্কাডা সিস্টেম স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে।

কম্প্রেসর সংক্রান্ত কার্যক্রম

১৫০০ এম এম সি এফ ডি ক্যাপাসিটি সম্পন্ন আশুগঞ্জ ও ৫০০ এমএমসিএফডি ক্যাপাসিটি সম্পনড়ব এলেঙ্গা কম্প্রেসর স্টেশনের মাধ্যমে জাতীয় গ্যাস গ্রিড সুষম চাপে নিরবচ্ছিন্নভাবে গ্যাস সঞ্চালন করা সম্ভব হচ্ছে। আশুগঞ্জ ও এলেঙ্গায় স্থাপিত কম্প্রেসর স্টেশনদ্বয় জাতীয় গ্যাস গ্রিডের অতি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হিসেবে গ্যাসের চাপ ও প্রবাহ বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের বিপণন কোম্পানিসমূহের অধিভূক্ত এলাকায় বিদ্যমান বিভিন্ন শ্রেণির গ্রাহকদের চাহিদা মোতাবেক গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। কম্প্রেসর স্টেশনদ্বয় চালু থাকায় দৈনিক ১৫০-২০০ এমএমএসসিএফডি পর্যন্ত অতিরিক্ত গ্যাসের প্রবাহ বৃদ্ধি করা সম্ভব হচ্ছে এবং সারা দেশে গ্যাসের নিম্নচাপ জনিত সমস্যার সমাধান হয়েছে।

আশুগঞ্জ ও এলেঙ্গা গ্যাস কম্প্রেসর স্টেশনদ্বয়ের Gas Turbine এর  Maintenance & Servicing কাজের বিপরীতে ০৯-০৪-২০১৯ তারিখ হতে পরবর্তী ৫(পাঁচ) বছরের জন্য  Siemens Bangladesh Ltd. এর সাথে,  Distributed Control System (DCS) Service এর বিপরীতে ১৭-০৪-২০১৯ তারিখ হতে পরবর্তী ৫(পাঁচ) বছরের জন্য Instrumentation Engineers Asia Pacific Pte. Ltd., Singapore এর সাথে এবং Gas Engine Generator এর Maintenance কাজের বিপরীতে ০১-০১-২০১৯ তারিখ হতে পরবর্তী ৩(তিন) বছরের জন্য Bangla Track Limited (Bangla CAT) এর সাথে Long Term Service Contract (LTSC) সম্পাদন করা হয়েছে। এছাড়া, SEPCO Electric Power Construction Corporation, China এর সাথে আশুগঞ্জ ও এলেঙ্গা গ্যাস কম্প্রেসর স্টেশনদ্বয়ের শুধুমাত্র Operation and Maintenance কাজের চুক্তির মেয়াদ আরও ০১(এক) বছর বৃদ্ধি করা হয়েছে। পাশাপাশি গ্যাস কম্প্রেসর স্টেশনসমূহের অপারেশন ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজে জিটিসিএল এর জনবলের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যেও বিভিন্ন  ধরণের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

লিকুইফাইড ন্যাচারাল গ্যাস (এলএনজি) হতে প্রাপ্ত আরএলএনজি সঞ্চালন কার্যক্রম

দেশের ক্রমবর্ধমান গ্যাসের চাহিদা মেটানোর লক্ষ্যে সরকার তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানি করছে। মার্কিন কোম্পানি এক্সিলারেট এনার্জি বাংলাদেশ লিমিটেড (ইইবিএল) কর্তৃক কক্সবাজার জেলাধীন মহেশখালী দ্বীপের অদূরে গভীর সমুদ্রে ৫০০ এমএমএসসিএফডি ক্ষমতা সম্পন্ন Floating Storage and Re-gasification Unit (FSRU) স্থাপন করা হয়েছে এবং ১৮-০৮-২০১৮ তারিখ হতে আরএলএনজি সরবরাহ শুরু হয়েছে। অপরদিকে, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সামিট করপোরেশন লিমিটেড কর্তৃক গভীর সমুদ্রে ৫০০ এমএমএসসিএফডি ক্ষমতা সম্পন্ন আরও একটি FSRU স্থাপন এপ্রিল, ২০১৯ মাসে সম্পন্ন হয়। ২৯-০৪-২০১৯ তারিখে উক্ত FSRU হতে জাতীয় গ্রিডে আরএলএনজি সরবরাহ করা হচ্ছে।

এতদ্ব্যতীত সরকার কর্তৃক মাতারবাড়ীতে ১০০০ এমএমএসসিএফডি ক্ষমতা সম্পন্ন ল্যান্ড বেইজড এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে আমদানিকৃত এলএনজি হতে প্রাপ্ত আরএলএনজি জাতীয় গ্যাস গ্রিডে সরবরাহের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে মহেশখালী জিরো পয়েন্ট (কালাদিয়ার চর)-সিটিএমএস (ধলঘাট পাড়া) গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইন, মহেশখালী- আনোয়ারা গ্যাস সঞ্চালন সমান্তরাল পাইপলাইন, আনোয়ারা-ফৌজদারহাট গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইন ও চট্টগ্রাম-ফেনী-বাখরাবাদ গ্যাস সঞ্চালন সমান্তরাল পাইপলাইন নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। উক্ত পাইলাইন ও স্থাপনা সমূহের মাধ্যমে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে ৫৭৪৪.৮৮ এমএমএসসিএম আরএলএনজি জাতীয় গ্যাস গ্রিডের মাধ্যমে সঞ্চালন করা হয়েছে।

বার্ষিক র্কমসম্পাদন সংক্রান্ত র্কাযক্রম

সরকারি কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম (Government Performance Management System) এর আওতায় পেট্রোবাংলার সাথে জিটিসিএল এর গত ২০-০৬-২০১৯ তারিখে স্বাক্ষরিত ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির কৌশলগত উদ্দেশ্যসমূহের গুরুত্বপূর্ণ কার্যাবলি যথাঃ জিটিসিএল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিতরণ কোম্পানির কাছে গ্যাস সরবরাহ, ক্যাথডিক প্রটেকশন সিস্টেম স্থাপন, ক্যাথডিক প্রটেকশন সিস্টেম পরিচালন, On Stream Pigging কাজ সম্পাদন, লাভজনক পরিচালনার লক্ষ্যে রাজস্ব সংগ্রহ, কম্প্রেসর স্টেশন (আশুগঞ্জ ও এলেঙ্গা)-এর অপারেশন, গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইন সম্প্রসারণ, গ্যাস মিটারিং স্টেশন নির্মাণ (সিজিএস, টিবিএস, আরএমএস), স্কাডা সিস্টেমের মাধ্যমে জাতীয় গ্যাস গ্রিড পরিচালন, ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ, অবজারভেশন টাওয়ার নির্মাণ, জনবলের প্রশিক্ষণ, জনবল নিয়োগ ইত্যাদি কার্যক্রমের চুক্তিভুক্ত লক্ষ্যমাত্রা মোতাবেক প্রায় শতভাগ অর্জিত হয়েছে।

এছাড়া স্বাক্ষরিত চুক্তির আবশ্যিক কৌশলগত উদ্দেশ্যসমূহের গুরুত্বপূর্ণ কার্যাবলি যথাঃ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়ন, জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল ও তথ্য অধিকার বাস্তবায়ন, অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থা বাস্তবায়ন, সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি হালনাগাদকরণ ও বাস্তবায়ন, ই-ফাইলিং পদ্ধতি বাস্তবায়ন, উদ্ভাবনী উদ্যোগ/ক্ষুদ্র উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন, পিআরএল শুরুর ২ মাস পূর্বে সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর পিআরএল ও ছুটি নগদায়নপত্র জারী করা, তথ্য বাতায়ন হালনাগাদকরণ, বাজেট বাস্তবায়ন উন্নয়ন, স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির হালনাগাদ তালিকা প্রস্তুত করা, ইন্টারনেট বিলসহ ইউটিলিটি বিল পরিশোধ ইত্যাদি কার্যক্রম চুক্তিভুক্ত লক্ষ্যমাত্রা মোতাবেক প্রায় শতভাগ অর্জিত হয়েছে।

পেট্রোবাংলার সাথে জিটিসিএল-এর ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের স্বাক্ষরিত বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (Annual Performance Agreement)-এর কৌশলগত উদ্দেশ্য এবং আবশ্যিক কৌশলগত উদ্দেশ্যসমূহের যাবতীয় কার্যাবলি সম্পাদনপূর্বক বার্ষিক মূল্যায়নে সর্বমোট ৯২.৩৭% স্কোর অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।

জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল

সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সামগ্রিক উদ্যোগের সহায়ক কৌশল হিসেবে ‘সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়’ নিয়ে প্রশাসনিক মন্ত্রণালয় ও পেট্রোবাংলার নির্দেশনা অনুযায়ী কোম্পানিতে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কোম্পানির নৈতিকতা কমিটি ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা ও পরিবীক্ষণ কাঠামো প্রণয়নপূর্বক পেট্রোবাংলায় প্রেরণ করেছে। ২০২০-২০২১ অর্থবছরের সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা ও পরিবীক্ষণ কাঠামো প্রণয়নের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। কোম্পানির মাঠ পর্যায়ের কার্যালয় ও স্থাপনাসমূহে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে স্থায়ী পরিদর্শন কমিটি প্রতি ৩(তিন) মাস অন্তর সরেজমিনে পরিদর্শনান্তে তাদের প্রতিবেদন নিয়মিত দাখিল করে। কমিটির দাখিলকৃত প্রতিবেদনের সুপারিশ কোম্পানিতে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল এর আওতায় কোম্পানির কর্মকর্তা-কর্মচারিদের শুদ্ধাচার চর্চায় উৎসাহ প্রদানের লক্ষ্যে সরকার প্রণীত ‘শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান নীতিমালা, ২০১৭’ অনুসরণে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে ১জন কর্মকর্তা ও ১জন কর্মচারী-কে শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে।

উদ্ভাবনী

কাজের গতিশীলতা ও উদ্ভাবনী দক্ষতা বৃদ্ধি এবং নাগরিক সেবা প্রদান প্রক্রিয়া সহজীকরণ ও নতুন পন্থা উদ্ভাবন ও চর্চার লক্ষ্যে জিটিসিএল-এ ইনোভেশন টিম গঠন করা হয়। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির অন্তুর্ভুক্ত দপ্তর/সংস্থা কর্তৃক উদ্ভাবনী উদ্যোগ/ক্ষুদ্র উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তাবায়ন শীর্ষক কার্যক্রম হিসেবে জিটিসিএল-এ Public Addressing System বাস্তবায়ন করা হয়েছে। উক্ত PA System দ্বারা কোম্পানির প্রধান কার্যালয় ভবনে দুর্ঘটনাকালীন সময়ে সৃষ্ট জরুরী অবস্থায় ভবন হতে নিরাপদ বহির্গমনের নির্দেশনা, জরুরী অবস্থায় করণীয়, প্রতিরোধ এবং প্রতিকার প্রসঙ্গে নির্দেশনা, বিদ্যমান ফায়ার এলার্ম সিস্টেম এর সঠিক ব্যবহার, প্রতিদিন নামাজের আজান প্রচার, প্রয়োজনে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের একত্রিতকরণের জন্য ঘোষণা প্রচার ইত্যাদি কার্যক্রম সম্পাদন করা হচ্ছে।

তথ্যপ্রযুক্তি

কোম্পানির দাপ্তরিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন এবং পেপারবিহীন অফিসে পরিণত করার লক্ষ্যে ERP/EAM System পরিচালিত হচ্ছে। বর্তমানে উক্ত ERP/EAM System এর ৬টি মডিউলের মাধ্যমে যাবতীয় বিল পেমেন্ট, আর্থিক এবং প্রশাসনিক অনুমোদন গ্রহণ, বাজেট ছাড়করণ, সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীগণের ব্যক্তিগত তথ্যাদি সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনাকরণ, বায়োমেট্রিক হাজিরা (Digital Attendance) প্রদান, সকল ধরণের ছুটির আবেদন এবং অনুমোদন, বেতন-ভাতাদি প্রদান ইত্যাদি কার্যাবলি সম্পাদন করা হচ্ছে।

অপরদিকে দাপ্তরিক কাজে গতি বৃদ্ধি এবং স্বচ্ছতা আনয়নের লক্ষ্যে প্রশাসনিক ও আর্থিক অনুমোদন, অফিস আদেশ, আন্তঃবিভাগীয় পত্র, LFA ছুটি, সভার বিজ্ঞপ্তি, প্রশিক্ষণে মনোনয়ন, প্রশিক্ষণ প্রতিবেদন জমাদান ইত্যাদি ই-নথির মাধ্যমে সম্পাদন করা হচ্ছে। জিটিসিএল-এর অভ্যন্তরীণ ই-নথি কার্যক্রম এর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ এবং সে অনুযায়ী কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে এবং উক্ত মনিটরিং টিম প্রতি মাসে একটি মনিটরিং রিপোর্ট তৈরিপূর্বক সকল ডিভিশন/ডিপার্টমেন্ট প্রধানের নিকট প্রেরণ করে থাকে। ই-নথির ব্যবহার বৃদ্ধির লক্ষ্যে মন্ত্রণালয়, পেট্রোবাংলা, অন্যান্য কোম্পানি, ভেন্ডর ও ঠিকাদার হতে আগত চিঠি পত্র ই-নথিতে আপলোড করার কাজে নিয়োজিত ফ্রন্ট ডেস্ক এর কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

জিটিসিএল এর Dynamic, Responsive and Interactive ফিচারসহ ওয়েবসাইট পরিচালিত হচ্ছে। প্রধান কার্যালয়ের গ্রাউন্ড ফ্লোরে ডিভিশন ও ডিপার্টমেন্টের অবস্থান সংবলিত একটি ডিজিটাল দপ্তর বণ্টন নির্দেশক (Digital Display Board) স্থাপন করা হয়েছে যার মাধ্যমে সেবা গ্রহীতা সহজে নির্দিষ্ট কর্মকর্তার নিকট হতে সেবা গ্রহণ করতে পারছেন। কোম্পানির নিরাপত্তার জন্য প্রধান কার্যালয়সহ সকল স্থাপনাসমূহে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। কোম্পানির প্রধান কার্যালয় ভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে একটি ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ড স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া, কোম্পানির প্রধান কার্যালয় ভবনের গ্রাউন্ড ফ্লোরে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর মুরাল তথা বঙ্গবন্ধু কর্নারে গত বছরের ন্যায় চলতি বছরেও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর জন্মদিনে ও জাতীয় শোক দিবসে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ, পেট্রোবাংলা ও এর অধীন বিভিন্ন বিতরণ কোম্পানি কর্তৃক শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদন করা হয়েছে।